সংস্করণ: ২.০১

স্বত্ত্ব ২০১৪ - ২০১৭ কালার টকিঙ লিমিটেড

milk-raw-boiled.jpg

ক্ষতিকর কেন কাঁচা দুধ পান করা উচিৎ নয়?

আমাদের শরীরে এসিড ও ক্ষারের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ খুবই জরুরী। কাঁচা দুধ শরীরে এসিডের পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়। যা আমাদের শরীরের জন্য ক্ষতিকর।

আজকাল অনেকের মাঝে কাঁচা দুধ পানের প্রবণতা দেখা যায়। বলা হয়ে থাকে কাঁচা দুধে পাস্তুরীকৃত দুধের চেয়ে অধিক প্রাকৃতিক এন্টিবডি, আমিষ, ফ্যাট ইত্যাদি থাকে। তবে মনে রাখতে হবে পাস্তুরীকৃত দুধে জীবাণু কম থাকে। এটি অধিক স্বাস্থ্যবর্ধক, পরিষ্কার ও স্বাদযুক্ত।

বর্তমানে এক গবেষণায় জানা যায় কাঁচা দুধ পান শরীরের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। এই লেখায় কেন কাঁচা দুধ পান করবেন না তা তুলে ধরার চেষ্টা করা হচ্ছে।

জন হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান গবেষক বেঞ্জামিন ডেবিস এর গবেষণা মতে, কাঁচা দুধ পাস্তুরীকৃত দুধের চেয়ে ১০০ বেশি রোগ ছড়াতে পারে। সাধারণত দুধে প্রাপ্ত জীবাণুর মাঝে রয়েছে ইশিরিসিয়া কোলাই (O157:H7), সালমোনেলা, ক্যাম্পাইলোব্যাকটার, লিস্টেরিয়া ইত্যাদি। এসব জীবাণু  মানুষ বিশেষ করে শিশু, গর্ভবতী মহিলা ও বয়স্কদের খাদ্যজনিত রোগের কারণ। তাছাড়াও কাঁচা দুধ পানে নিম্নের দুটি মারাত্মক সমস্যা হতে পারে।

যক্ষা হবার সম্ভাবনা: কাঁচা দুধ পান করলে পানকারীর শরীরে মাইকোব্যাকটেরিয়াম টিউবারকুলোসিস নামক যক্ষার জীবাণু প্রবেশ করতে পারে। যক্ষা আক্রান্ত গাভী কিংবা মহিষে জীবাণু থাকতে পারে। আক্রান্ত প্রাণী থেকে সংগৃহিত দুধের মাধ্যমে এই রোগ মানবদেহে প্রবেশ করতে পারে। যদি কেউ কাঁচা দুধ পান করে তবে এই জীবাণু পানকারীর শরীরে প্রবেশ করে যক্ষারোগ ছড়াতে পারে।

এসিডিটির সমস্যা: আমাদের শরীরে এসিড ও ক্ষারের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ খুবই জরুরী। কাঁচা দুধ শরীরে এসিডের পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়। যা আমাদের শরীরের জন্য ক্ষতিকর। দুধ অনেক রোগ সাড়াতে পারে। এটির রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও অনেক। তবে এসিডের অনিয়ন্ত্রিত মাত্রা আবার অনেক রোগ ডেকে আনতে পারে। এটি কিছু কিছু লোকের এসিডির সমস্যা বাড়িয়ে দিতে পারে।

অনেক সময় পাস্তুরীকৃত দুধেও যক্ষার জীবাণু থাকতে পারে। কারণ এটি অধিক তাপেও মারা যায় না। তবে অধিকাংশ জীবাণুই সামান্য কিংবা অধিক তাপের কারণে মারা যায়। তাই দুগ্ধজনিত রোগ থেকে বাঁচতে হলে দুধ ফুটিয়েই পান করা উচিৎ।

-
লেখক: চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও এনিম্যাল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় (সিভাসু)।


এখানে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার স্বত্ত্ব ও দায় লেখক কর্তৃক সংরক্ষিত। আমাদের সম্পাদনা পরিষদ প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে এখানে যেন নির্ভুল, মৌলিক এবং গ্রহণযোগ্য বিষয়াদি প্রকাশিত হয়। তারপরও সার্বিক চর্চার উন্নয়নে আপনাদের সহযোগীতা একান্ত কাম্য। যদি কোনো নকল লেখা দেখে থাকেন অথবা কোনো বিষয় আপনার কাছে অগ্রহণযোগ্য মনে হয়ে থাকে, অনুগ্রহ করে আমাদের কাছে বিস্তারিত লিখুন।

raw, milk, Risk, Diseases, health, cow, research, human, digest, science